ইউটিউব চ্যানেলের ভিডিওতে End Screen, Cards & Subscribe বাটন সেটআপ নিয়ম

End screen, Cards & Subscribe

ইউটিউব হচ্ছে একটি ভিডিও শেয়ারিং প্লাটফর্ম। ইহা ২০০৫ সালে যাত্রা শুরু করে। এখানে প্রতিনিয়ত অসংখ্য ভিডিও আপলোড করা হয়। হাজার হাজার নয় মিলিয়ন মিলিয়ন ভিডিও আপলোড করা হচ্ছে। কোটি কোটি দর্শক বা শ্রোতা তা দেখছে এবং শোনছে। হাজার হাজার ইউটিউবাররা ভিডিও তৈরি করছে এবং আপলোড করে যাচ্ছে। ইউটিউব চ্যানেলে ভিডিও আপলোড করতে হলে আপনাকে একটি ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে হবে। ইউটিউব চ্যানেল থেকে অর্থ আয় করতে চাইলে প্রফেশনালী ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে হবে। প্রফেশনালী চ্যানেল কিভাবে তৈরি করবেন তা এই আর্টিকেলের নিচে দেখতে পাবেন। প্রফেশনাল চ্যানেল তৈরির একটি অংশ ইন্ডস্ক্রিন, কার্ডস এবং সাবস্ক্রাইব ( Subscribe ) বাটন সেটাপ করা। এই আর্টিকেলে এ বিষয় গুলো বিস্তারিত তুলে ধরার চেষ্টা করবো।

ইউটিউব চ্যানেল কি :

ইউটিউব চ্যানেল হচ্ছে ভিডিও শেয়ারিং সফটওয়ার। গুগুলের পরই যার স্থান। এখানে বিভিন্ন ধরনের ভিডিও আপলোড করা হয়। যেখান থেকে কোটি কোটি দর্শক জ্ঞান মূলক, শিক্ষা মূলক কিছু জানতে পারে এবং শিখতে পারে। আমরা জানি গুগুলে সকল ধরনের ইনফরমেশন বা তথ্য পাওয়া যায়। সে গুলো সম্পর্কে বুঝতে সমস্যা হলে তা আমরা ইউটিউবে ভিডিও দেখে বিস্তারিত জানতে পারি। গুগুলে থিউরিক্যাল জানতে পারি এবং ইউটিউবে প্যাকটিক্যাল ভাবে জানতে পারি। ইউটিউব বিনোদনের মাধ্যমে সকল তথ্য তুলে ধরার চেষ্টা করে থাকে। তাই আমরা গুগুলের চেয়ে ইউটিউব চ্যানেল দেখতে তথা ভিডিও দেখতে সাচ্ছন্দবোধ বেশি করে থাকি।

ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে কি কি প্রয়োজন :

ইউটিউব চ্যানেল তৈরি খুব একটা কঠিন কাজ নয়, আবার সহজ বলবো তাও না। একটি প্রফেশনালী ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে হলে বিভিন্ন দিকে নজর দিতে হয়। প্রথমত: গুগুলের সকল গাইডলাইন মেনে ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে হবে। নতুবা আপনার চ্যানেল ফলড করতে পারে। তাই ইউটিউবের Terms & Condition মেনে চ্যানেল তৈরি করতে হবে। ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে হলে কিছু জিনিসের প্রয়োজন হয়। তা নিচে তুলে ধরা হলো।

১. ইউটিউব চ্যানেল তৈরির জন্য কিছু ডিভাইসের প্রয়োজন হয়। যেমন : কম্পিউটর, ল্যাপটপ বা মোবাইল এর মধ্যে যে কোনো একটি ডিভাইস থাকতে হবে।

২. একটি ভেরিফাইড জিমেইল একাউন্ট থাকতে হবে। জিমেইল একাউন্ট থাকলে ভালো। না থাকলে এই লিংক থেকে একটি জিমেইল একাউন্ট তৈরি করে নিতে পারেন। লিংকটি হলো https://www.ictcorner.com/email/

৩. ইন্টারনেট কানেকশন থাকতে হবে। যে কোনো মাধ্যমে তথা ব্রডব্যান্ড, ওয়াইফাই বা মডেম এগুলোর যে কোনো একটি মাধ্যমে ইন্টারনেট কানেকশন থাকতে হবে।

ভিডিওতে ইন্ডস্ক্রিন, কার্ডস এবং সাবস্ক্রাইব ( Subscribe) বাটন সেটাপ :

আপনি ইউটিউবের জন্য ভিডিও তৈরি করলেন ঠিক আছে। কিন্তু যদি তা প্রফেশনালী লুক না দেখায় তা কেউ দেখতে চাইবে না। তাই ইউটিউবের জন্য তৈরিকৃত ভিডিওতে প্রফেশানালি লুক দেওয়ার জন্য ইন্ডস্ক্রিন , কার্ডস এবং সাবস্ক্রাইব বাটন সেটাপ করতে হবে। আসুন জেনে নেই কিভাবে ইন্ডস্ক্রিন, কার্ডস এবং সাবস্ক্রাইব বাটন সেটাপ করা যায়।

ইন্ডস্ক্রিন ( End screen ) :

ইন্ডস্ক্রিন সেটাপ করতে হলে প্রথমে আপনাকে কোনো ব্রাউজারে গিয়ে আপনার ইউটিউব চ্যানেল ওপেন করুন। তারপর Manage videos এ ক্লিক করুন। তারপর নিচের মতো একটি ইন্টারফেস দেখতে পাবেন।

Screen short 20 :

Screenshot_20

এবার আপনার কান্খিত ভিডিওর নামের উপর কার্চর নিয়ে গেলে একটি কলমের মতো আইকন দেখতে পাবেন নিচে লেখা আছে ডিটেলস তাতে ক্লিক করুন। উপরে দেখুন লাল তীর চিহ্ন দিয়ে দেখানো হচ্ছে । ওখানে কার্চর নিয়ে গেলে একটি কলমের মতো আইকোন দেখতে পাবেন তাতে ক্লিক করুন। তখন নিচের মতো একটি ইন্টারফেস দেখতে পাবেন।

Screen short 31 :

Screenshot_31

এবার ভিডিও ডিটেলস পেজের ডান পাশে লাল ঘরে তীর চিহ্ন দেওয়া End screen এর ধারে কলমের মতো আইকোন দেখতে পাচ্ছেন। আইকোনে ক্লিক করুন। তখন নিচের মতো একটি ইন্টারফেস দেখতে পাবেন।

Screen short 32 :

Screenshot_32

এবার লাল ঘরে Element এর উপর ক্লিক করুন। তাহলে ড্র্রপ ডাউন লিস্ট দেখতে পাবেন তাতে ভিডিওতে ক্লিক করুন। এখানে উল্লেখ্য ইন্ডস্ক্রিন সেট করতে হলে আপনার চ্যানেলে কমপক্ষে ২/৩ টি ভিডিও থাকতে হবে। ভিডিওতে ক্লিক করার পর নিচে দেখুন তিনটি অপশন আসছে গোল বিত্ত দেওয়া। যাতে লেখা আছে 0 Most recent upload, 0 Best for viewer, 0 choose specific video , এর মধ্যে যেটা আপনার পছন্দ তাতে ক্লিক করুন। তারপর কত সময় পর ইন্ডস্ক্রিনের মাধ্যমে আপনার অন্য ভিডিও দেখাতে চান তা Play বাটনের মাধ্যমে টাইম সেট করে দিন। এবার সেভ বাটনে ক্লিক করুন। বাস আপনার ইন্ডস্ক্রিন সেট হয়ে গেছে।

উল্লেখ্য : আপনার ভিডিও আপলোড করার সময়ও সরাসরি End screen এবং Cards বাটন সেটাপ করতে পারবেন। আর আপলোডের পরে করতে চাইলে এই ভাবে দেখানো পদ্ধতিতে সেট করতে পারবেন।

কার্ডস ( Cards ) :

ইন্ডস্ক্রিনের নিচেই কার্ডস বাটন রয়েছে। কার্ডস বাটনের পাশে কলমের মতো আইকোন দেখতে পাচ্ছেন তাতে ক্লিক করুন। তখন নিচের মতো একটি ইন্টারফেস দেখতে পাবেন।

Screen short 33 :

Screenshot_33

এবার উপরে লাল ঘরে Card এ ক্লিক করুন। তাহলে একটি ড্রপ ডাউন লিস্ট দেখতে পাবেন তাতে ভিডিওতে ক্লিক করুন। তখন বিভিন্ন ভিডিও দেখতে পাবেন। যে ভিডিওতে Cards বা i (আই) বাটন সেট করতে চান তার উপর ক্লিক করুন। তারপর টাইম সেট করে দিন। এবার সেভ বাটনে ক্লিক করুন। বাস আপনার কার্ডস সেটাপ হয়ে গেল।

সাবস্ক্রাইব ( ‍Subscribe ) :

আপনার চ্যানেলের ভিডিওতে সাবস্ক্রাইব (Subscribe ) বাটন বা ওয়াটার মার্ক সেটাপ করতে হলে Customize Channel এ ক্লিক করুন। তারপর নিচের মতো একটি ইন্টারফেস দেখতে পাবেন।

Screen short 25 :

Screenshot_25

এবার উপরে লাল ঘরে Branding এ ক্লিক করুন। তারপর নিচের মতো দেখতে পাবেন। এখানে নিচে Video Watermark থেকে Browse এ ক্লিক করুন। ( উল্লেখ্য আগে থেকে একটি সাবস্ক্রাইব লোগো আপনার কম্পিউটরের ডাউলোড ফাইলে রাখতে হবে।) তাহলে আপনার কম্পিউটরের ডাউনলোড ফাইলে নিয়ে যাবে। সেখান থেকে সাবস্ক্রাইব লোগো আপলোড করুন। এবার পাশে তীর চিহ্ন দেওয়া তিনটি অপশন দেখতে পাচ্ছেন। ০End of video, 0 custom start time, 0 Entire video, যদি লোগোটি ভিডিওর শেষে দেখতে চান তাহলে End of video পাশে বিত্ত ভরাট করুন। আর প্রথমে দেখতে চাইলে Custom start time এর পাশে বিত্ত ভরাট করে দিন। আর যদি সমস্ত ভিডিওতে দেখতে চান তাহলে Entire video এর পাশে বিত্তটি ভরাট করে দিন। এবার পাবলিশ বাটনে ক্লিক করুন। বাস আপনার ওয়াটার মার্ক বা সাবস্ক্রাইব (Subscribe) বাটন সেটাপ হয়ে গেল।

পড়ুন :

কিভাবে প্রফেশনাল ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করবেন

কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করবেন

শেষ কথা :

প্রফেশনাল ভিডিও লুক তৈরি করতে চাইলে ইন্ডস্ক্রিন, কার্ডস এবং সাবস্ক্রাইব ( Subscribe ) বাটন সেটাপ করতে হবে। যা আপনার চ্যানেল এবং ভিডিও কে আকর্ষনীয় করে তুলবে। ইউটিউব চ্যানেল থেকে অর্থ আয় করতে চাইলে ব্রান্ড চ্যানেল তৈরি করতে হবে। চ্যানেল কে সঠিক ভাবে কাস্টমাইজ করতে হবে। একটি ইউটিউব চ্যানেল হতে পারে আপনার ভবিষ্যৎ আয়ের উৎস। অনলাইন থেকে অর্থ ইনকামের সবচেয়ে বড় প্লাটফর্ম হচ্ছে একটি ব্রান্ড ইউটিউব চ্যানেল। তাই একটি ব্রান্ড ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করুন এবং প্রোপার ওয়েতে কাস্টমাইজ করুন। তারপর ইউনিক ভিডিও আপলোড করুন এবং সঠিক ভাবে এস ই ও করুন। ১০০০ সাবস্ক্রাইব এবং ৪০০০ ওয়াচ টাইম পূর্ন হলে মনিটাইজেশনের জন্য আবেদন করুন। মনিটাইজেশন এপ্রোভ হলে এডসেন্স থেকে এড কোড বসিয়ে আয় করুন। ভিউয়ার এতক্ষন ধরে আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ। আর কোন কিছু বুঝতে সমস্যা হলে কমেন্টস করতে ভূলবেন না। আশা করি উত্তর দেওয়ার জন্য চেষ্টা করবো। সুস্থ থাকুন ভালো থাকুন।

Related posts

4 Thoughts to “ইউটিউব চ্যানেলের ভিডিওতে End Screen, Cards & Subscribe বাটন সেটআপ নিয়ম”

  1. Thanks for the good article, I hope you continue to work as well.Спаситель на продажу

Leave a Comment