প্যাসিভ ইনকাম (Passive Income) কি ? প্যাসিভ ইনকামের সেরা 5টি উপায়

Passive Income

পৃথিবীতে ধনী হতে চাইলে প্যাসিভ ইনকাম (Passive Income) থাকতে হবে। প্যাসিভ ইনকাম ছাড়া ধনী হওয়া যায় না। যত বড় বড় লোক দেখবেন তাদের বড় লোক হওয়ার পিছনে প্যাসিভ ইনকাম রয়েছে। আমরা সবাই বড় লোক বা ধনী হতে চাই। কিন্তু ধনী হওয়ার পথ সম্পর্কে আমাদের জানা নেই। কি করলে ধনী বা বড় লোক হওয়া যাবে বা কিভাবে ধনী হওয়া যাবে সেটা জানা নেই। আজ আমি আপনাদের সামনে ধনী হওয়ার পথ সম্পর্কে তুলে ধরার চেষ্টা করবো। এক মনিষী বলেছেন আমার 100 ডলার পড়ে গেলে তা তোলার চেষ্টা করি না। কারন ঐ 100 ডলার তুলতে যে সময় লাগবে ততক্ষনে আমার 500 ডলার ইনকাম হয়ে যাবে। এখন বুঝেন সময়ের কত দাম। তাই সময় থাকতে প্যাসিভ ইনকামের চেষ্টা করুন। যদি আপনি সঠিক প্যাসিভ ইনকামের পথ তৈরি করতে পারেন তাহলে একদিন না একদিন অবশ্যই ধনী হবেন।

প্যাসিভ ইনকাম (Passive Income) কি :

প্যাসিভ ইনকাম হচ্ছে এমন একটি আয়ের ব্যবস্থা যেখানে একবার ইনভেষ্ট করতে পারলে সারা জীবন বসে বসে খেতে পারবেন। সহজ ভাবে বলা যায় প্যাসিভ ইনকাম এমন একটি ব্যবস্থা যে কাজ একবার তৈরি করে রাখলে সারা জীবন বসে বসে ইনকাম আসতে থাকবে। যেমন : আপনি একটি 10 তলা বিল্ডিং তৈরি করে ভাড়া দিলেন। সেখান থেকে মাসে মাসে ভাড়া পেতে থাকবেন। একবার একটি কাজ বা বিল্ডিং তৈরি করে রাখলেন সারা বছর বসে বসে ইনকাম আসতে থাকবে। এটি একটি প্যাসিভ ইনকাম। হয়তো ভাবছেন আমি টাকা কই পাবো। ভাই প্যাসিভ ইনকাম দুই ভাবে করা যায়। এক, টাকা ইনভেষ্ট করে। দুই টাকা ইনভেষ্ট ছাড়া। টাকা ইনভেস্ট ছাড়া কিভাবে প্যাসিভ ইনকাম করা যায়। টাকা ছাড়া প্যাসিভ ইনকাম করতে চাইলে আপনি একটি ব্লগসাইট তৈরি করতে পারেন। সেখানে কন্টেনট তৈরি করে পাবলিশ করবেন। সেখানে এডসেন্স এপ্রোভ করাতে পারলে আপনার আয়ের পথ খুলে যাবে। তখন বসে বসে আপনি ইনকাম করতে পারবেন। মোট কথা প্যাসিভ ইনকাম এমন একটি ইনকাম যেখানে একবার কোন কাজের মাধ্যমে আয়ের পথ সৃষ্টি করতে পারলে সেখান থেকে সারা জীবন বসে বসে ইনকাম আসতে থাকবে।

একটিভ ইনকাম ও প্যাসিভ ইনকামের মধ্যে পার্থক্য :

ইনকামের পথ দুই ধরনের। এক, একটিভ ইনকাম (Active income)। দুই, প্যাসিভ ইনকাম (Passive Income)।

1. একটিভ ইনকাম (Active Income) : একটিভ ইনকাম হচেছ যে ইনকাম শারিরীক পরিশ্রম সহ সার্বক্ষনিক ইনভলভ থেকে অর্থ ইনকাম করা যায় তাকে একটিভ ইনকাম করা বুঝায়। যেমন : একজন রিক্সাওয়ালা সারা দিন রিক্সা চালিয়ে যে ইনকাম করে তাকে একটিভ ইনকাম বলে। বা কোন অফিসের একজন কর্মকর্তা/কর্মচারী সারাদিন 10টা টু 5টা পর্যন্ত কাজ করে যে মাসিক পারিশ্রমিক পায় তা একটিভ ইনকাম করা বুঝায়। একটিভ ইনকামের ক্ষেত্রে সার্বক্ষনিক কাজের সাথে ইনভলভ থাকতে হয়।

2. প্যাসিভ ইনকাম (Passive Income) : প্যাসিভ ইনকাম হচ্ছে কোন কাজ একবার তৈরি করতে পারলে সেখান থেকে সারা জীবন যে ইনকাম আসে তাকে প্যাসিভ ইনকাম বুঝায়। যেমন : আপনি একটি ব্লগসাইট তৈরি করে রাখলেন সেখান থেকে মাসে মাসে ইনকাম জেনারেট হতে থাকবে। প্যাসিভ ইনকামের ক্ষেত্রে সার্বক্ষনিক কাজের সাথে ইনভলব থাকতে হয় না। একবার কোন কাজ তৈরি করে রাখতে পারলে সেখান থেকে সারা বছর ঘুমে ঘুমে ইনকাম করতে পারবেন।

প্যাসিভ ইনকামের( Passive Income) সেরা 5টি উপায় :

একটিভ ইনকাম এবং প্যাসিভ ইনকাম সম্পর্কে আপনাদের মধ্যে ধারনা হয়ে গেছে। এবার প্যাসিভ ইনকাম কিভাবে করা যায় সে বিষয়ে তুলে ধরার চেষ্টা করবো। প্যাসিভ ইনকাম বিভিন্ন ভাবে করা যায়। তার মধ্যে থেকে সেরা 5টি উপায় আপনাদের সামনে তুলে ধরার চেষ্টা করবো।

1. ব্লগিং করা :

ব্লগ হচ্ছে আমাদের দৈনন্দিন জীবনে প্রতিচ্ছবি বা ডাইরি। যেখানে প্রতিনিয়ত লেখালেখি করা হয়। আপনার যদি লেখালেখি করার অভ্যাস থেকে থাকে তাহলে একটি ব্লগ সাইট তৈরি করতে পারেন। যেখানে প্রতিনিয়ত আর্টিকেল লিখে পাবলিশ করতে পারেন। ব্লগসাইট তৈরি করতে হলে আপনি দুটি সাইটের মধ্যে যে কোন একটি সাইট বেছে নিতে পারেন। এক, ব্লগার ডট কম। দুই, ওয়ার্ডপ্রেস ডট কম। এই দুইটি প্লাটফর্মের মধ্যে যে কোন একটির মাধ্যমে ব্লগসাইট তৈরি করতে পারেন। একটি ভালো মানের ব্লগসাইট তৈরি করে সেখানে এডসেন্স এপ্রোভ করিয়ে ইনকাম জেনারেট করতে পারেন। একবার যদি আপনার ব্লগসাইট র‌্যান্ক করাতে পারেন তাহলে বসে বসে আপনি ইনকাম করতে পারবেন। এই ব্লগসাইট তৈরির মাধ্যমে প্যাসিভ ইনকাম করতে পারবেন।

2. ইউটিউব মার্কেটিং করা :

ইউটিউব গুগুলের একটি পার্ট। গুগুলের পরই ইউটিউবের স্থান। ইউটিউবে ভিডিও আপলোড করা হয়ে থাকে। গুগুলে কোন তথ্য সম্পর্কে পরিস্কার ধারনা না পাওয়া গেলে ইউটিউবে ভিডিও দেখে তা পরিস্কার হওয়া যায়। ইউটিউবে প্রতিনিয়ত হাজার হাজার ভিডিও আপলোড করা হয়ে থাকে। এখানে আপনি ফ্রিতে ভিডিও আপলোড করতে পারবেন। আপনার প্রোডাক্ট সম্পর্কে ভিডিও তৈরি করে মার্কেটিং করতে পারবেন। এখানে আপনি একটি চ্যানেল খুলে আপনার প্রোডাক্ট সম্পর্কে ভিডিও তৈরি করে আপলোড দিন। আপনার প্রোডাক্ট সেল হতে থাকবে এবং ইনকাম আসতে থাকবে। আপনার চ্যানেল মনিটাইজ করতে পারলে সেখান থেকে ইনকাম জেনারেট হতে থাকবে। আপনি যে কোন নিশ রিলেটেড ভিডিও তৈরি করতে পারবেন। চ্যানেল মনিটাইজ করাতে পারলেই আপনার ইনকাম শুরু হয়ে যাবে। এই ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমেও আপনি প্যাসিভ ইনকাম করতে পারবেন।

3. আ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করা :

আ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হচ্ছে কোন কোম্পানীর প্রোডাক্ট সেলের বিনিময়ে যে কমিশন পাওয়া যায় তাকে আ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং বলে। অনলাইনে হাজারো আ্যাফিলেয়েট প্লাটফর্ম রয়েছে সেখানে এ্যফিলিয়েট মার্কেটিং করে ইনকাম করতে পারেন। যেমন : আমাজন আ্যাফিলেয়েট, আলীবাবা, ইভেলি, ইবে, বিডি সপ ইত্যাদি। এসব সাইট গুলোতে রেজিষ্ট্রেশন করে তাদের প্রোডাক্ট নিয়ে মার্কেটিং করে ইনকাম জেনারেট করতে পারেন। এর জন্য আপনার একটি ই-কমার্স সাইট থাকলে ভালো। এই সাইটের মাধ্যমে সহজে ইনকাম করতে পারবেন। যদি একবার আপনার সাইট স্ট্যাবলিষ্ট করতে পারেন। তাহলে বসে বসে ইনকাম করতে পারবেন। এই ভাবে প্যাসিভ ইনকাম করতে পারেন।

4. গ্রাফিক্স ডিজাইন তৈরি করা :

গ্রাফিক্স ডিজাইল তৈরি করেও প্যাসিভ ইনকাম করতে পারেন। আপনি যদি একজন ভালো মানের গ্রাফিক্স ডিজাইনার হন তাহলে প্রতি মাসে ডিজাইন বিক্রি করে প্রচুর ইনকাম করতে পারবেনে। তার জন্য আপনাকে দক্ষ ডিজাইনার হতে হবে। কাজের যথেষ্ট স্কিল থাকতে হবে। আপনি ইচ্ছা করলে কোন ইনিস্টিটিউট থেকে 6 মাসের ট্রেনিং নিয়ে একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনার হতে পারেন। একবার যদি আপনি নিজেকে দক্ষ ডিজাইনার হিসাবে গড়ে তুলতে পারেন তাহলে আপনার ডিজাইন বিক্রি করে বসে বসে ইনকাম করতে পারবেন। ডিজাইন বিক্রির জন্য বিভিন্ন মার্কেট প্লেস রয়েছে। সেখানে আপনার ডিজাইন আপলোড করে রাখবেন। যতবার ডিজাইন বিক্রি হবে ততোবার আপনার ইনকাম আসবে। এই গ্রাফিক্স ডিজাইন বিক্রি করেও প্যাসিভ ইনকাম করতে পারবেন।

5. রিয়াল স্টেট নির্মান করা একটি Best Passive Income Ideas :

রিয়াল স্টেট নির্মান করা একটি Best Passive Income Ideas. আপনার যদি অর্থ থাকে তাহলে হাউস বিল্ডিং তৈরি করে ভাড়া দিয়ে ইনকাম করতে পারেন। বর্তমানে ভাড়া বাসার চাহিদা প্রচুর। আপনি যদি একবার এই বিল্ডিং তৈরি করেন তাহলে সারা জীবন ভাড়া দিয়ে বসে বসে ইনকাম জেনারেট করতে পারবেন। বিল্ডিংয়ের নীচে গেরেজ বা স্টোর রুম তৈরি করেও ভাড়া দিতে পারেন। সেখান থেকেও মাসে মাসে ইনকাম করতে পারবেন। এতে বিনা পরিশ্রমে মাসে মাসে বসে বসে ইনকাম করতে পারবেন। এই রিয়াল স্টেট নির্মান করেও প্যাসিভ ইনকাম করতে পারেন।

পড়ুন :

কিভাবে ওয়েবসাইট গুগুলের ফাস্ট পেজে আসবে।

ওয়েবসাইটের পেজ দ্রুতগতিতে ইনডেক্স হওয়ার উপায়

পরিশেষে কথা হচ্ছে প্যাসিভ ইনকামের (Passive Income) অসংখ্য পথ রয়েছে। চাই শুধু ইচ্ছা শক্তি। প্যাসিভ ইনকাম অর্থ ইনভেস্ট করেও করা যায়। আবার অর্থ ইনভেস্ট না করেও প্যাসিভ ইনকাম করা যায়। আমি বলবো যাদের অর্থ নেই তারা অনলাইন ইনকাম সম্পর্কে স্কিল অর্জন করুন। অনলাইনে অর্থ ইনকামের অসংখ্য পথ রয়েছে। চাই শুধু কাজের স্কিল বা দক্ষতা। সঠিক কাজের দক্ষতা অর্জন করতে পারলে আপনার একসময় ইনকাম আসতে থাকবে। সর্বপরি কথা হচ্ছে প্যাসিভ ইনকামের স্বপ্ন দেখার আগে নিজেকে গড়ে তুলতে হবে। নিজের ইচ্ছা শক্তিকে জাগ্রত করতে হবে। নিজের লক্ষ্য স্থির করতে হবে এবং সে লক্ষ্যে এগিয়ে যেতে হবে। তবেই একদিন সফলকাম হতে পারবেন ইনশাল্লাহ। সবাইকে ধন্যবাদ।

Related posts

Leave a Comment