Off Page SEO কি এবং Off Page এস ই ও কিভাবে করা হয়

Off Page SEO

ওয়েবসাইটে ভিজিটর বৃদ্ধি এবং র‌্যান্কিংয়ের জন্য এস ই ও এর গুরুত্ব অপরিসীম।এস ই ও একটি সাইটকে সহজে খোঁজে পেতে সাহায্য করে। ইউজারের চাহিদা অনুসারে তার কান্খিত তথ্য পেতে এস ই ও এর ভুমিকা ব্যাপক। এস ই ও এর মাধ্যমে কোন সাইটকে ভিজিটিরের কাছে সহজে তুলে ধরা সম্ভব হয়।কোন সাইটকে সার্চ ইন্জিনে ইনডেক্স করা হলে গুগুল তার এলগরিদম পদ্ধতিতে সহজে খোঁজে ব্যবহারকারীর কাছে উপস্থাপন করে।তাই এস ই ও এর গুরুত্ব অপরিসীম। এস ই ও দুই ভাবে করা যায়। এক অনপেজ এস ই ও এবং দুই অফপেজ এস ই ও।এখানে অফপেজ এস ই ও নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।প্রশ্ন হচ্ছে Off Page SEO কি এবং Off Page এস ই ও কিভাবে করা হয়।

SEO কি :

এস ই ও কি এ সম্পর্কে আগের একটি র্আটিকেলে লিখে ছিলাম তবুও এখানে কিছু ধরনা দেওয়ার জন্য লিখছি। SEO হচ্ছে Search Engen Optimization. গুগুল তার এলগরিদম পদ্ধতিতে সার্চ করে ইউজারের চাহিদা অনুসারে যে ফলাফল উপস্থাপন করে তাই হচ্ছে SEO বা সার্চ ইন্জিন অপটিমাইজেশন। একটি সাইটকে বা কন্টেন্টকে এস ই ও করার মাধ্যমে গুগুলের ফাস্ট পেজে বা প্রথম পাতায় আনা সম্ভব।তাই একটি সাইটের ভিজিটর বৃদ্ধি ও র‌্যান্কিং করার জন্য এস ই ও করা জরুরী। একটি সঠিক এস ই ও পারে সবার কাছে সঠিক তথ্য তুলে ধরতে।তাই সঠিক ভাবে এস ই ও করা উচিত।

SEO
SEO

Off Page SEO কি :

Off Page SEO হচ্ছে নিজের সাইটের বাহিরে গিয়ে অন্যের সাইটে নিজের সাইট সম্পর্কে যে কাজ করা হয় তাকে অফপেজ এস ই ও বলা হয়। আর অনপেজ এস ই ও হচ্ছে নিজের সাইটের ভিতরে যে কাজ করা হয় তাকে অনপেজ এস ই ও বলা হয়।অফপেজ এস ই ও এক দিনের কাজ নয়। ইহা বিশাল বড় পরিসরে ও দীর্ঘ সময়ের কাজ। তাই নিয়মিত অফপেজ এস ই ও করে যেতে হবে তবেই ইহার সু ফলাফল লক্ষ্য করা যাবে।

অফপেজ এস ই ও কিভাবে করা হয় :

ওয়েবসাইটের প্রচার প্রচরনার করার জন্য অফপেজ এস ই ও করা হয়। যাতে ভিজিটররা সহজে কোন সাইটকে দেখতে পায় বা খোঁজে পায়।অফপেজ এস ই ও এক দিনের কাজ নয়। ইহা বিভিন্ন পরিসরে বিভিন্ন ভাবে করতে হয়।যে যে পদ্ধতিতে অফপেজ এস ই ও করতে হয় তা নিচে উল্লেখ করা হলো।

১. লিংক বিল্ডিং বা ব্যাকলিংক করা

২. ডিরেক্টরি সাবমিশন করা

৩. সোসাল বুকমার্ক করা

৪. ফোরাম পোস্টিং করা

৫. ব্লগ কমেন্টিং করা

৬. র্আটিকেল সাবমিশন করা

৭. ভিডিও মার্কেটিং করা

৮. গেস্ট পোস্টিং করা

৯. সোসাল মার্কেটিং করা

১০. Question and Answer সাবমিশন করা

১. লিংক বিল্ডিং বা ব্যাকলিংক করা :

লিংক বিল্ডিং হচ্ছে কোন ওয়েবসাইটে বা ব্লগসাইটে গিয়ে কমেন্টের মাধ্যমে নিজের সাইটের লিংক দেওয়াই হচ্ছে লিংক বিল্ডিং।সহজ ভাষায় লিংক বিল্ডিংকেই ব্যাকলিংক বলা হয়ে থাকে।অফপেজ এস ই ও মানেই ব্যাকলিংকে বুঝি।ব্যাকলিংক তৈরি করা অফপেজ এস ই ও এর জন্য জরুরী।যদি ভালো ভালো High Quality বা ভালো কোন PA, DA সাইটে ব্যাকলিংক দিতে পারেন। তাহলে আপনার সাইটে ভিজিটির বৃদ্ধি পাবে এবং সাইট র‌্যান্কিংয়ে এগিয়ে যাবে।তাই ভালো Domen Authority সাইট দেখে ব্যাকলিংক দিন এবং সাইটের র‌্যান্কিং বৃদ্ধি করুন।

২. ডিরেক্টরি সাবমিশন কার :

ডিরেক্টরি সাবমিশন একটি পুরাতন পদ্ধতি।অনলাইনে হাজার হাজার ডিরেক্টরি সাইট আছে।সে সাইট গুলোতে গিয়ে প্রথমে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। তারপর আপনার সাইটের নিশ রিলেটেড ক্যাটাগরি সিলেক্ট করে আপনার সাইটের লিংক বসিয়ে দিন।সব সময় মনে রাখবেন হাই কোয়ালিটি এবং ভালো ডোমেন অথরিটি সাইট গুলো দেখে সাইটের লিংক বসিয়ে ব্যাকলিংক দিন।

৩. সোসাল বুকমার্ক করা :

সোসাল বুকমার্ক পোস্ট করা একটি গুরুত্বপূর্ন ব্যাকলিংক।ওয়েব জগতে হাজার হাজার সোসাল বুকমার্ক সাইট রয়েছে।যে গুলোতে আপনি সহজে বুকমার্ক করতে পারবেন।প্রথমে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে।তারপর আপনার সাইটের Url দিন, সাইটের নাম দিন, র্আটিকেলের কিছু অংশ কপি করে পেস্ট করে দিন। তারপর ক্যাটাগরি ও ট্যাগ সিলেক্ট করুন।তারপর ক্যাপচা পুরুন করে সাবমিট করুন।সঠিক ভাবে সোসাল বুকমার্ক করতে পারলে আপনার সাইট এবং র্আটিকেল সহজে রেন্কিংকে এগিয়ে আসবে।অর্থাৎ গুগুলের ফাস্ট পেজে আসবে।

৪. ফোরাম পোস্টিং করা :

ফোরাম হচ্ছে যেখানে ডাইলোগ বা কথপোকথন করা হয়। বিভিন্ন ফোরাম সাইট রয়েছে।সে গুলোতে রেজিস্ট্রেশন করে তাদের আলোচনায় অংশ গ্রহন করতে হবে।আপনি এক দিনে রেজিস্ট্রেশন করে সেখালে লিংক বসিয়ে দিলে কিন্তু এপ্রোপ হবে না।আগে তাদের আলোচনায় অংশ গ্রহন করে ফোরামের বিভিন্ন সদস্যদের সাথে ডাইলগ করতে হবে। তারপর আস্তে আস্তে এক সময় সেখানে আপনার সাইটের লিংক বসিয়ে দিতে হবে।এখান থেকে আপনি প্রচুর ভিজিটর পেতে পারেন।

৫. ব্লগ কমেন্টিং করা :

ব্লগসাইটে কমেন্টের মাধ্যমে ব্যাকলিংক দেওয়া হয়। ব্লগ কি এটা আমরা সবাই বুঝি।যেখানে প্রতিনিয়ত লেখালেখি করা হয় সেটাই হচ্ছে ব্লগ সাইট।ব্লগ সাইটে শুধু যেন তেন কমেন্ট করলেই হবে না এ্যাফিক্টিভ কমেন্ট করতে হবে।আর সেই সব ব্লগসাইটে কমেন্ট করতে হবে যে সমস্ত ব্লগ সাইট আপনার নিশ রিলেটেড বা সমমনা সাইট।সে সমস্ত সাইটে কমেন্ট করতে হবে। তাহলে কিন্তু আপনার কাজে আসবে।নয়তে উপকারের চেয়ে অপকার হবে। আর সব সময় ডু-ফলো সাইটে কমেন্ট করে আপনার সাইটের লিংক বসিয়ে দিন। তাহলে শক্তিশালী ব্যাকলিংক হবে।নো-ফলো সাইটে কমেন্টে তেমন কোন কাজে আসে না।তাই সব সময় ডু-ফলো সাইটে ব্যাকলিংক দিন।

৬. র্আটিকেল সাবমিশন করা :

র্আটিকেল সাবমিশন হচ্ছে যে সাইটে র্আটিকেল সাবমিশন করবেন সেই সাইট রিলেটেড সুন্দর একটি র্আটিকেল লিখে পোস্ট করা। র্আটিকেল লিখে সেখানে পোস্ট করে আপনার সাইটের লিংক বসিয়ে দিন।তাতে সেখান থেকে আপনি ভিজিটর পেতে পারেন। র্আটিকেল সাবমিশন অনেকটা গেস্ট পোস্টিংয়ের মতোন। র্আটিকেল সাবমিশন একটি পুারাতন কৌশল।ঠিক ভাবে করতে পারলে এখনো কাজে দেয়।আপনিও চেষ্টা করে দেখতে পারেন।

৭. ভিডিও মার্কেটিং করা :

আমরা কম বেশি মোটামুটি সবাই ভিডিও দেখি। ইউটিউবে অনেক ভিডিও দেখতে পাবেন। আপনার যে বিষয়ে জানার দরকার সে বিষয় লিখে সার্চ করলে অনেক ভিডিও দেখতে পাবেন।বর্তমানে ভিডিও মার্কেটিং বেশ জনপ্রিয়।ভিডিওর প্রতি মানুষ বেশি আকর্ষন বোধ করে। তাই আপনার কন্টেন্ট সম্পর্কে ভিডিও তৈরি করে বিভিন্ন সাইটে প্রকাশ করতে পারেন। ইউটিউব, ভিমো ইত্যাদি সাইটে প্রকাশ করে মার্কেটিং করতে পারেন।এতে প্রচুর ভিজিটর পাবেন।ভিজিটর বৃদ্ধি তো আপনার সাইট হিট।

৮. গেষ্ট পোস্টিং করা :

গেষ্ট পোস্টিং হচ্ছে আপনার সাইট রিলেটেড বা আপনার নিশ রিলেটেড সাইট গুলোতে গিয়ে সাইট সম্পর্কিত র্আটিকেল লেখে পোস্ট করা।এতে আপনি ঐ সাইটের জন্য একজন গেষ্ট।এটাকে গেষ্ট পোস্টিং বলে।আর গেষ্ট পোস্টিং করে সেখানে আপনার সাইটের লিংক বসিয়ে দিন।এতে আপনার একটি ব্যাকলিংক তৈরি হলো। এই লিংকের মাধ্যমে আপনি ঐ সাইট থেকে ভিজিটর পেতে পারেন।গেষ্ট পোস্টিং করা নতুনদের জন্য কঠিন।প্রথমে ঐ সাটের অনুমতি নিতে হবে।তারপর গেস্ট পোস্ট করা যাবে।

৯. সোসাল মার্কেটিং করা :

কোন সাইটে ভিজিটর বৃদ্ধির জন্য সোসাল মার্কেটিং খুবই গুরুত্বপুর্ন।সোসাল মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে প্রচুর ভিজিটর আসা সম্ভব।বর্তমানে জনপ্রিয় সোসাল নেটওয়ার্ক সাইটি গুলো হলো ফেসবুক, টুইটার, গুগুল প্লাস, লিংকদিন, পিন্টারিস্ট, ইনিস্টাগ্রাম ইত্যাদি।এই সাইট গুলোতে ভালো ভাবে প্রোফাইল তৈরি করুন এবং নতুন নতুন কন্টেন্টর লিংক পাবলিশ করুন।এতে আপনার এ্যাফিকটিভ ব্যাকলিংক তৈরি হবে এবং এখান থেকে প্রচুর ভিজিটর পাবেন।

ফেসবুক মার্কেটিং করতে চাইলে লিংকে ক্লিক করুন : https://www.ictcorner.com/facebook-marketing/

১০. Question and Answer সাবমিশন করা :

Question and Answer সাবমিশন একটি এ্যাফিক্টিভ ব্যাকলিংক। করসিন এন্ড এ্যানসার সাইট গুলো হলো ’কোরা’ ও ‘ইয়াহু’ ইত্যাদি এই সাইট গুলোতে প্রশ্নের উত্তর দিয়ে সেখানে আপনার সাইটের লিংক বসিয়ে দিন এবং সাইট গুলোর মাধমে তাদের নিয়ম মেনে প্রশ্ন করতে পারেন সেখানেও লিংক দিন। এতে এই সাইট গুলো থেকে আপনি প্রচুর ভিজিটর পেতে পারেন।

অনপেজ এস ই ও কি জানতে হলে ক্লিক করুন : https://www.ictcorner.com/on-page-seo/

পরিশেষে কথা হচ্ছে এস ই ও কোন নির্দিষ্ট কাজ নয় যে এই এই কাজ গুলো করলেই আমার কাজ শেষ হয়ে গেল। আর কোন কাজ করতে হবে না। তা কিন্তু না। এস ই ও প্রতিনিয়ত করে যেতে হবে। আস্তে আস্তে এর সুফল পেতে থাকবেন এবং আপনার সাইট র‌্যান্কিংয়ে অগ্রসর হতে থাকবে।তাই সঠিক ভাবে এস ই ও করুন, আপনার সাইটকে সবার উপরে নিয়ে আসুন।আর সব সময় On Page SEO এবং Off Page SEO দুটোর প্রতিই গুরুত্ব দিন।তবেই আপনার সাইটে সঠিক ভাবে এস ই ও সম্পূন্ন হবে। ধন্যবাদ।

Related posts

One Thought to “Off Page SEO কি এবং Off Page এস ই ও কিভাবে করা হয়”

  1. I love what you guys are usually up too. This type of clever work and reporting!
    Keep up the great works guys I’ve included you guys
    to blogroll.

Leave a Comment