বুস্ট কি ? কিভাবে ফেসবুক পোস্ট বুস্ট (Facebook Post Boost) করবো

Facebook Post Boost

সোসাল মিডিয়ার মধ্যে অন্যতম প্লাটফর্ম হচ্ছে ফেসবুক। কোন প্রোডাক্ট বা সার্ভিস প্রমোট করতে হলে ফেসবুক পোস্ট বুস্ট (Facebook Post Boost) করতে হয়। এই ফেসবুকের মাধ্যমে ব্যবসার প্রোডাক্ট বা কোন সার্ভিস প্রচার করা যায়। ফেসবুক সার্ভিস প্রোমোট করতে চাইলে বা ফেসবুকে কাংখিত অডিয়েন্স থেকে ফলাফল লাভ করতে চাইলে ফেসবুক পোস্ট বুস্ট করতে হয়। ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার ব্যবসার প্রোডাক্ট সেল করতে পারবেন। আপনার ওয়েবসাইটের লাইক, ফলোয়ার ও ভিজিটর বৃদ্ধি করতে পারবেন। ফেসবুকে বিভিন্ন মাধ্যমে ব্যবসার প্রোডাক্ট সেল করা যায় বা ওয়েবসাইটে ভিজিটর বৃদ্ধি করা যায়। যেমন : ফেসবুকে পোস্ট ক্রেয়েট করে, ফেসবুক মার্কেট প্লেসের মাধ্যমে, ফেসবুক পেজে পোস্ট করার মাধ্যমে, ফেসবুক এড ম্যানেজারের মাধ্যমে এড প্রদর্শন করে ইত্যাদি মাধ্যমে কাংখিত ফলাফল লাভ করা যায়। তবে বুস্ট পোস্ট করার মাধ্যমে বেশি ফলাফল লাভ করা যায়। আজকে আমি আপনাদের সামনে তুলে ধরার চেষ্টা করবো – ”বুস্ট কি ? কিভাবে ফেসবুক পোস্ট বুস্ট করা যায়”।

বুস্ট কি :

বুস্ট শব্দের অর্থ উন্নতি সাধন করা, উৎসাহ প্রদান করা, প্রচার করা বা সামনের দিকে ঠেলে দেওয়া। আর ফেসবুকে পোস্ট বুস্ট করা হচ্ছে বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে অর্গানিক রিচ বৃদ্ধি করা। অর্থাৎ ডলার বা টাকার বিনিময়ে ফেসবুকে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করে কাংখিত ফলাফল লাভ করাকে ফেসবুক পোস্ট বুস্ট করা বলা হয়ে থাকে। আপনি যদি আপনার ফেসবুক পোস্ট বা এড সুন্দর ভাবে তৈরি করতে না পারেন তাহলে সঠিক ফলাফল লাভ করতে ব্যর্থ হবেন। তাই ফেসবুকে বিজ্ঞাপন বা এড প্রদর্শন করতে চাইলে সুন্দর ভাবে এড তৈরি বা পোস্ট তৈরি করতে হবে। এই এড বা বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের জন্য একটি ফেসবুক ফ্যান পেজ বা বিজনেস পেজ ক্রেয়েট করতে হবে। বিজনেস পেজকে সুন্দর ভাবে অপটিমাইজ করতে হবে। পেজের ইউনিক নাম দিতে হবে, বিজনেস পেজে লোগো সেট করতে হবে, ব্যানার সেট করতে হবে এবং অন্যান্য তথ্য দিয়ে সঠিক ভাবে অপটিমাইজ করতে হবে। মনে রাখবেন আপনার সুন্দর এড তৈরি বা পোস্ট তৈরিই কিন্তু ফেসবুক বুস্ট করার সফলতা বয়ে এনে দিতে পারে।

পড়ুন :

কিভাবে ফেসবুক বিজনেস পেজ তৈরি করবেন

কিভাবে ফেসবুক পোস্ট বুস্ট (Facebook Post Boost) করবো :

ফেসবুক পোস্ট বুস্ট করার অন্যতম পন্থা হচ্ছে প্রথমে একটি ফেসবুক পেজ তৈরি করতে হবে। সেই পেজে আপনার প্রোডাক্টের বা সার্ভিসের পোস্ট তৈরি করতে হবে। পোস্ট যদি সঠিক ভাবে করা হয়ে থাকে তাহলে পোস্টের নিচে দেখবেন Boost Post লেখা রয়েছে। এই বুস্ট পোস্টে ক্লিক করে ফেসবুকের নির্দিষ্ট উপায়ে বা পদ্ধতিতে ফেসবুক পোস্ট বুস্ট করতে হবে। আসুন জেনে নেয়া যাক কিভাবে ফেসবুক পোস্ট বুস্ট করা যায়।

প্রথমে যে পেজের পোস্ট বুস্ট করতে চান সে পেজে যেতে হবে। তারপর যে পোস্ট বুস্ট করতে চান তা চয়েস করুন। চয়েসকৃত ফেসবুক পেজের পোস্টের নিচে Boost Post এ ক্লিক করুন। তখন নিচের মতো আপনার পোস্টের একটি ইন্টারফেস দেখতে পাবেন। ধরুন, আমি এই পেজে আমি ”ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স এর 5টি টিপস” পোস্টটি বুস্ট করতে চাই। তাহলে নিচে কর্ণারে লাল তীর চিহ্ন দেওয়া Boost Post এ ক্লিক করতে হবে।

Facebook Post Boost :

Facebook Post Boost

উপরের পেজের লাল তীর চিহ্ন দেওয়া Boost Post এ ক্লিক করলে নিচের মতো একটি ইন্টারফেস দেখতে পাবেন।

Facebook Post Boost One :

Facebook Post Boost one

এই ইন্টারফেসে উপরে লাল তীর চিহ্ন দেওয়া Goal এর পাশে Change ক্লিক করে আপনার পছন্দ মতো ক্যারাইটারি সেট করে দিতে পারেন। সাধারনত Automatic সেট করে দেওয়াই ভালো। কারন ফেসবুক ভালো জানে এই এড গুলো কাদের কাদের দেখানো উচিৎ।

তারপর Button সেট করে দিতে হবে। Button লেখা নিচের ঘরের ডান পাশে তিন কোন বিশিষ্ট চিহ্নতে ক্লিক করে আপনার পছন্দমতো ক্যাটাগরি সিলেক্ট করুন। যেমন : Send message, Learn more, Shop now যে কোন একটি বাটন সেট করে দিতে পারেন।

Special Ad Category আপাততো সেট করার প্রয়োজন নেই। যেমন আছে তেমনি থাক।

Messenger APP থেকে আপনার ইচ্ছা মতো যে কোন দুটি সেট করে দিতে পারেন। মেসেন্জার এবং ইনিস্টাগ্রাম সেট করে দিতে পারেন।

Welcome Message আপততো প্রয়োজন নেই। আপনি প্রয়োজন মনে করলে সেট করে দিতে পারেন।

Audience :

Audience

Audience সেটা আপ করা খুব গুরুত্বপূর্ন। এখানে Create now এ ক্লিক করলে ড্রপ ডাউন ইন্টারফেস দেখতে পাবেন। এখানে অডিয়েন্সের একটি নাম দিন। তারপর জেন্ডারের ক্ষেত্রে আপনার এড ছেলে মেয়ে উভয়কে দেখাতে চাইলে All সেট করুন। আর শুধু ছেলেদের দেখাতে চাইলে Men সেট করুন। আর শুধু মেয়েদের দেখাতে চাইলে women সেট করুন।

Age বা বয়সের ক্ষেত্রে রেখা টেনে কমবেশি করে বয়স সেট করে দিতে পারেন। বয়স সাধারনত 18 থেকে 40 বছর বয়সের মধ্যে দেওয়া ভালো। কারন এই বয়সের ছেলে মেয়েরা অনলাইন থেকে কেনাকাটা বেশি করতে চায়। আপনি চাইলে 50 বছর বয়স পর্যন্ত দিতে পারেন।

Location সেট করে দিতে হবে। আপনি কোন দেশে বা কোন এলাকায় আপনার এড দেখাতে চান তা সেট করে দিতে হবে। আমিরেকায় দেখাতে চাইলে আমেরিকা লিখুন। ভারতে দেখাতে চাইলে ভারত দেশের নাম লিখুন। বাংলাদেশে দেখাতে চাইলে বাংলাদেশের নাম লিখুন। স্পেসিফিক কোন এলাকার নাম লিখতে চাইলে তাও লিখে দিতে পারেন। যেমন : ঢাকা, বাংলাদেশ। তাহলে আপনার এড শুধু ঢাকার মধ্যে দেখাবে।

Detailed targeting থেকে আপনার স্পেসেফিক কোন টার্গেট থাকলে সেট করে দিতে পারেন। না থাকলে কোন সমস্যা নেই।

এবার Save Audience এ ক্লিক করুন।

তারপর Duration বা সময় সেট করে দিতে হবে। আপনি কত দিনের জন্য এড টি চালাতে চান ‍4দিন, 5দিন, 7দিন বা 10 দিন তা নির্ধারন করে দিন। সর্বনিম্ন 4দিনে নিচে এড চালাতে পারবেন না। উপরে যত দিন চালাতে চান চালাতে পারবেন।

তারপর Total Budget : আপনার বাজেট কত। আপনি কত ডলার বা কত টাকার এড চালাতে চান তা নির্ধারন করে দিতে হবে। ডলারে বা টাকায় যে কোন ভাবে সেট করে দিত পারেন। 500 টাকা, 1000 টাকা, 2000 টাকা যত টাকার এড চালাতে চান চালাতে পারবেন।

তারপর Placement থেকে আপনার এড টি কোন মিডিয়াতে দেখাতে চান তা নির্ধারন করে দিন। ফেসবুক, ইনিস্টাগ্রাম বা মেসেন্জার এর মধ্যে থেকে যে কোন দুইটি সেট করে দিন।

তারপর Pixel সেটাপ করুন। আপনার যদি কোন ওয়েবসাইটে পিক্সেল সেটাপ করা থেকে থাকে তাহলে অন করে দিন। না থাকলে অন করে দেবেন না।

তারপর Payment Method থেকে Add Payment Method এ ক্লিক করে আপনি কোন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ডলার বা টাকা পেমেন্ট করবেন। তা সেট করে দিতে হবে। এখানে উল্লেখ্য ফেসবুক এড পে করতে হলে আপনার ডুয়েল কারেন্সি কার্ড থাকতে হবে। অর্থাৎ পাইনিওর বা মাষ্টার কার্ড থাকতে হবে। কার্ড থাকলে ভালো আর যদি না থাকে তাহলে ফেসবুকে অনেক গ্রুপ আছে সেখানে পোস্ট দিবেন ফেসবুক এড পে করে দেওয়ার জন্য। তাহলে তারা আপনাকে পে করে দেওয়ার ব্যবস্থা করে দিবে। তবে কিছু চার্চ বেশি নেবে।

এবার শেষে Boost Post Now এ ক্লিক করুন। বাছ আপনার ফেসবুক পোস্ট বুস্ট করা হয়ে গেছে। এখন ফেসবুক কোম্পানী আপনার পোস্ট যাচাইবাছাই করে দেখবে। যদি সব দিক থেকে ঠিক থাকে তাহলে ফেসবুক কোম্পানী আপনার এড রান করতে থাকেব।

আরো পড়ুন :

কিভাবে ফেসবুক মার্কেটিং করবেন

কিভাবে ফেসবুক পিক্সেল সেটাপ করবেন

পরিশেষে কথা হচ্ছে ফেসবুক পোস্ট বুস্ট (Facebook Post Boost) একটি ইফেক্টিভ ওয়ে। ফেসবুকে পোস্ট বুস্ট করলে আপনার প্রোডাক্ট সেল বেশি হবে। আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিটর বৃদ্ধি পাবে। আপনার সাইটে লাইক ও ফলোয়ার বৃদ্ধি করতে পারবেন। মোটকথা আপনি যে ক্যাটাগরির জন্য বুস্ট করবেন সে অনুযায়ী তার ফিটব্যাক পাবেন। আর্টিকেলটি বুঝতে সমস্যা হলে কমেন্টে জানাবেন। এছাড়া আপনার কোন পরামর্শ থাকলে শেয়ার করতে ভুলবেন না। এতক্ষন সংগে থাকার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ।

Related posts

2 Thoughts to “বুস্ট কি ? কিভাবে ফেসবুক পোস্ট বুস্ট (Facebook Post Boost) করবো”

  1. Md. Jisan

    স্যার আপনার সাথে কিভাবে কন্ট্রাক্ট করতে পারি। আপনার ফোন নাম্বার টা কি দেওয়া যাবে।

Leave a Comment